ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

সামাজিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় সংযমের মাস

ইসলাম অর্থ শান্তি ও আত্মসমর্পণ। মহান স্রষ্টা, আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মানবজাতির জন্য ইসলামী জীবনবিধান দান করেছেন তাদের শান্তির জন্য। কিন্তু এই শান্তি কখনোই লাভ করা যাবে না যতক্ষণ পর্যন্ত মানুষ ওই জীবনবিধানের কাছে নিজেকে সমর্পণ না করে। অর্থাত্ ইসলামের বিধানকে মানুষ যদি বাস্তব জীবনে অনুসরণ বা বাস্তবায়িত না করে।

বিস্তারিত পড়ুন …

রমজান ও তাকওয়া

মহান আল্লাহপাক তাঁর পবিত্র কোরআনের অসংখ্য জায়গায় তাকওয়ার বিষয়টি বর্ণনা করেছেন এবং মুত্তাকি লোকদের পরিচয় তুলে ধরেছেন। উদাহরণস্বরূপ নিম্নের কয়েকটি আয়াত উল্লেখ করছি। এটি (আল-কোরআন) জীবনযাপনের ব্যবস্থা, সেই মুত্তাকিদের জন্য যারা গায়েবে (অদৃশ্য আল্লাহতায়ার সত্তা ও গুণাবলী, ফেরেশতা, আখিরাত, জান্নাত, জাহান্নাম ইত্যাদি) বিশ্বাস করে, নামাজ কায়েম করে, আমি তাদের যে রিজিক দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করে, যে কিতাব তোমার প্রতি নাজিল করা হয়েছে (অর্থাত্ আল-কোরআন) এবং তোমার আগে যেসব কিতাব অবতীর্ণ হয়েছে, সে সবকেই বিশ্বাস করে এবং পরকালের প্রতি যাদের দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে (বাকারা-২-৪)।

বিস্তারিত পড়ুন …

চোখের সর্বোত্তম ব্যবহার

মানুষের মূল্যবান চোখ রাব্বুল আলামিনের শ্রেষ্ঠ উপহার। চোখের রঙিন দৃষ্টিতে দুনিয়ার সব কিছুর প্রকৃত রূপ-রং ধরা পড়ে। এ চোখের দৃষ্টিতে আমরা সুন্দর-কুিসত, ভালো-মন্দ, উত্থান-পতন, নগ্নতা-বর্বরতা প্রাকৃতিক দৃশ্যাবলী কত কি দেখি। আবার এ চোখের দৃষ্টি দিয়েই কোরআন-কিতাব পড়ি। মানুষের পঞ্চইন্দ্রিয়ের মধ্যে চোখ অন্যতম। অন্তঃকরণকে ভেতরে ও বাইরে সঠিক পথ দেখায় চোখের দৃষ্টি। চোখের বক্র ইশারা (অপব্যবহার) ও অন্তরে যা গোপন আছে সে সম্পর্কে তিনি অবহিত (৪০:১৯)।

বিস্তারিত পড়ুন …

রমজান ও আল কোরআন

রমজান বছরের গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ একটি মাস। মহান রাব্বুল আলামিন এ মাসে কোরআনে কারিম অবতীর্ণ করে তাকে মহিমান্বিত করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘রমজান মাসই হলো সে মাস, যাতে নাজিল করা হয়েছে কোরআন, যা মানুষের জন্য হেদায়েত এবং সত্যপথযাত্রীদের জন্য সুস্পষ্ট পথনির্দেশ আর ন্যায় ও অন্যায়ের মাঝে পার্থক্য বিধানকারী’ (বাকারা-১৮৫)।

বিস্তারিত পড়ুন …

র ম জা ন হে ল থ

পুরান তেলে ভাজা ইফতারি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর
আমাদের দেশে রোজায় ইফতারি হিসেবে তেলে ভাজা খাবারই বেশি চলে। ঘরে কিংবা বাইরে যেখানেই হোক, এসব ইফতারের প্রায় সবই পুরনো তেলে ভাজা অর্থাৎ একই তেলে বারবার ভেজে তৈরি করা হয়। পুরনো তেলে ভাজা খাবার অনেকেরই প্রিয় এর বিশেষ সুবাসের কারণে। কিন্তু আমাদের অনেকেরই হয়তো জানা নেই, একই তেলে বারবার ভাজা খাবার শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

বিস্তারিত পড়ুন …

রোজায় স্বাস্থ্যসম্মত সেহরি ও ইফতার

রোজা শুধু আত্মশুদ্ধির মাসই নয়, এ মাস আত্মনিয়ন্ত্রণেরও মাস। নিজেকে একটি নির্দিষ্ট নিয়মে পরিচালিত করার মাধ্যমে শরীরে প্রতিষ্ঠিত হয় শৃঙ্খলা। রোজার সময় সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থাকার বিষয়টি শরীরের ওপর যে প্রভাব ফেলে তা কাটিয়ে ওঠার জন্য এ সময়ে শরীরকে চালাতে হবে ভিন্ন নিয়মে। বিশেষ করে এ সময়ে খাবার-দাবারে আনতে হবে বিশেষ পরিবর্তন।

বিস্তারিত পড়ুন …

রমজান মাসে দাঁতের যতœ ও চিকিৎসা

রমজান মাস মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত পবিত্র একটি মাস। এ মাসেই পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কুরআন অবতীর্ণ হয়। রমজান মাসে রোজা রাখার জন্য কিছু বিধিনিষেধ রয়েছে, যা পালন করেই রোজা রাখতে হয়। রমজান মাসে দাঁতের যতœ ও চিকিৎসার ব্যাপারে সর্বসাধারণের মনে কিছু প্রশ্ন দেখা দেয় আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে অনেকেই বিভিন্ন মতামত প্রকাশ করেন, যা মোটেই কাম্য হতে পারে না।

বিস্তারিত পড়ুন …

সামাজিক জীবনে রোজার আবেদন

বছর ঘুরে আবারও এলো পবিত্র মাহে রমজান। রমাদান মাস মুসলিম জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া। তাকওয়া অর্জনের মাস রমাদান। নেকি হাসিলের মাসও এটি। লাইলাতুল কদর এবং কোরআনের মাসও রমাদান। এ মাসের মর্যাদা অনেক। এক মাস সিয়াম সাধনার মাধ্যমে একজন বান্দা পরিণত হতে পারে সোনার মানুষে।

বিস্তারিত পড়ুন …

মাসায়েলে রমজান: রোজা না রাখার অনুমতি যাদের আছে

১. মুসাফির
* মুসাফিরের জন্য সফর অবস্থায় রোজা না রাখারও সুযোগ রয়েছে। তবে বেশি কষ্ট না হলে রোজা রাখাই উত্তম। আর অস্বাভাবিক কষ্ট হলে রোজা রাখা মাকরুহ। এ অবস্থায় রোজা না রেখে পরে কাজা করে নেবে।
* সফর অবস্থায় নিয়ত করে রোজা রাখা শুরু করলে তা ভাঙা জায়েজ নয়। কেউ ভেঙে ফেললে গোনাহগার হবে। তবে কাফফারা দিতে হবে না। শুধু কাজা করবে।

বিস্তারিত পড়ুন …

রমজানে নারীদের আমল

রোজার দায়িত্ব-কর্তব্য ও আমলের দিক থেকে নারীদের বিষয়টি একটু আলাদা। কেননা পুরুষরা বাইরের নানা দিক সামাল দিতে গিয়ে ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও রমজানের পরিপূর্ণ দাবি পূরণে অনেকাংশে ব্যর্থ হয়। সাধারণত মহিলাদের বাইরের ব্যস্ততা কম থাকে। বাইরে বেরুলেও বেশি সময় বাইরে থাকতে হয় না। ঘরোয়া পরিবেশেই কাটে রোজার দিনগুলো। ফলে তাদের পক্ষে রমজানের পূর্ণ ফায়েজ ও বরকত লাভ করা অনেকাংশে সহজ।

বিস্তারিত পড়ুন …