ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

যে কারণে রোযা ফরজ হলো

যে কারণে রোযা ফরজ হলোসাওম শব্দটি আরবি। সাওম বা সিয়াম শব্দের আভিধানিক অর্থ বিরত থাকা। শরিয়তের পরিভাষায়, সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিয়তসহকারে পানাহার এবং কামাচার থেকে বিরত থাকাকে ‘সাওম’ বা রোজা বলা হয়। বিশ্ব প্রতিপালক আল কুরআনে ইরশাদ করেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হয়েছে যেমনিভাবে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর। আর এ জন্যই ফরজ করা হয়েছে যাতে তোমরা তাকওয়া হাসিল করতে সম হও।’ (সূরা বাকারা : ১৮৩)

এখানে একটি বিষয় লণীয় যে, আল্লাহ বলেছেন, তেমনিভাবে রোজা ফরজ করা হয়েছে যেমনিভাবে তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর ফরজ করা হয়েছিল। এ বাণীটির দ্বারা মুসলিম জনগোষ্ঠীকে আল্লাহ তায়ালা সাহস প্রদান করেছেন। এরপর মহান প্রতিপালক বলেছেন, ‘লায়ালাকুম তাত্তাকুন’। এ জন্য রোজা ফরজ করা হয়েছে যাতে তোমরা তাকওয়াবান হতে পার। এ বাণীর দ্বারা স্পষ্ট বুঝা যায় যে, রোজা ফরজ করা হয়েছে এ জন্য যাতে ঈমানদারগণ তাকওয়াবান হয়। এই তাকওয়াবান হওয়াই হলো রোজার অভীষ্ট ল্য।

আজ মানবজাতির উন্নতি ও অগ্রগতির জন্য যে নৈতিক মূল্যবোধ প্রয়োজন তা আজ আমাদের নেই। আজ আমরা জানি না শান্তি নামক সাদা পায়রাটি কোথায় বাস করে। উন্নত চরিত্রের ক্ষেত্রে কালের চক্রে আদর্শের ময়দানে আজ আমরা পরাজিত। আজ আমরা বিজ্ঞান প্রযুক্তির আবিষ্কারে সত্যিই এক অসাধারণ কৃতিত্বের দাবিদার; কিন্তু নীতি নৈতিকতায় আমরা ফিরে গেছি অন্ধকার যুগে।

মানবীয় মূল্যবোধের অবক্ষয় না হলে এই উন্নতি আমাদের বসবাসযোগ্য একটি সুন্দর পৃথিবী উপহার দিত। আমরা এই মাহে রমজানে সেহরি ইফতারিসহ সব বন্দেগির মাধ্যমে আমাদের জীবনকে আলোয় আলোয় ভরে তুলতে পারি। আজ আমাদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন মানবীয় মূল্যবোধের অবক্ষয় রোধ করা। আর এ জন্য প্রয়োজন তাকওয়ার, যা অর্জন হয় সিয়াম পালনে।

রোজা ফরজ করা হয়েছে তাকওয়াবান হওয়ার উদ্দেশ্যে আর এ উদ্দেশ্যে পৌঁছার মাধ্যম হলো সেহরি খাওয়া, ইফতার করা, সব ধরনের প্রবৃত্তির চাহিদা থেকে বিরত থাকা। কিন্তু আমি যদি এই সেহরি খাওয়া, ইফতার করা সব ধরনের প্রবৃত্তির চাহিদা থেকে ফিরে থাকাকে সওম মনে করি তাহলে আমার উদ্দেশ্যে পৌঁছা সম্ভব হবে না। এগুলোকে উদ্দেশ্য নয় উদ্দেশ্য সাধনের মাধ্যম মনে করতে হবে। আর যখনই কোনো ব্যক্তি উদ্দেশ্য সাধনের মাধ্যম মনে করে পালন করবে এবং ল্য সাধিত হবে তখনই রোজা এবং কুরআন ওই ব্যক্তির জন্য সুপারিশ করবে কাল কিয়ামতের দিন।

রোজা বলবে, ‘হে আল্লাহ! আমি তাকে পানাহার থেকে এবং সকল প্রকার প্রবৃত্তির চাহিদা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি অতএব ওই ব্যক্তির জন্য আমার সুপারিশ কবুল করো।’ আর কুরআন বলবে, ‘হে আল্লাহ! আমি তাকে রাতের নিদ্রা হতে বিরত রেখেছি। অতএব তার জন্য আমার সুপারিশ কবুল করো।’ এই রমজান মাসই হলো তাকওয়া অর্জনের উত্তম মৌসুম।

যেমন রাসূল সা: বলেছেন, ‘যখন রমজান মাস আসে তখন আসমানের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়। অপর বর্ণনায় এসেছে, জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। আর শয়তানকে করা হয় শৃঙ্খলিত।’ অপর বর্ণনায় এসেছে, ‘রহমতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হয়।’

তাই আসুন, কুরআন নাজিলের এই মাসে কুরআন পড়ি, কুরআন শিখি এবং নিজেকে পূত-পবিত্র করে গড়ে তুলি। রোজার মাধ্যমে আল্লাহভীতি বা তাকওয়া সৃষ্টি করি, যা মানুষকে আত্মসংযমী ও আত্মশুদ্ধিতে উদ্বুদ্ধ করে, যা নৈতিক চরিত্রের জীবনীশক্তি। যার মাধ্যমে সমাজ ও ব্যক্তি এক মহান চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ও কলুষমুক্ত হতে পারে। আমরা একটি টাকা হারিয়ে গেলে দিনভর আক্ষেপ করি আহারে একটি টাকা পড়ে গেছে। কিন্তু প্রতিটি মুহূর্তে জীবন থেকে যে মূল্যবান সময় হারিয়ে যাচ্ছে সেজন্য কি আক্ষেপ করছি? যেকোনো সময় মৃত্যু চলে আসতে পারে। তাই জীবনের প্রতিটি দিনকেই জীবনের শেষ দিন মনে করতে হবে। কারণ আমাদের সবার বাড়ির দরজায় মৃত্যুর ফেরেশতা দাঁড়িয়ে আছেন। তিনি ডাক দিলে আর প্রস্তুতি গ্রহণ করার সময় পাওয়া যাবে না ।

সুতরাং হাতে যে দিনটি আছে সেটিকে কাজে লাগিয়ে আমাদের জীবনকে তাকওয়ার শীর্ষচূড়ায় আরোহণ করিয়ে করে তুলতে হবে উন্নততর, মহত্ত্বতর পবিত্রতর।

Category: রোজা