ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

জাকাত : কল্যাণকর একটি ব্যবস্থা

জাকাত : কল্যাণকর একটি ব্যবস্থাজাকাত একটি ফরজ ইবাদত। ইসলামের মৌলিক পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে তৃতীয় স্তম্ভ। নামাজের পরেই জাকাতের স্থান। জাকাত কী এ কথার সহজ উত্তর হলো : জাকাত আল্লাহ তায়ালার নির্দেশানুযায়ী ঈমানদারগণের জন্য অবশ্য পালনীয় একটি ইবাদত। ঈমানের সাথে সম্পৃক্ত একটি প্রত্যয়। একটি বিশ্বাস। একটি অনুভূতি। সামাজিক নিরাপত্তার জন্য জাকাত অত্যন্ত ফলপ্রসূ একটি ব্যবস্থা। গরিব ও দুস্থদের জন্য একটি হক। জাকাত কোনো প্রকার দান বা অনুকম্পা নয়।

জাকাত অর্থ ও সম্পদ হস্তান্তরের একটি কৌশল। একটি প্রক্রিয়া। সুষম অর্থ ব্যবস্থার অন্যতম হাতিয়ার হলো জাকাত । সম্পদ বিকেন্দ্রীকরণে জাকাত একটি অন্যতম প্রক্রিয়া। জাকাত আয়ের বৈষম্য দূরীকরণে একটি পদ্ধতি। সমষ্টিগত অর্থনৈতিক মৌল কাঠামো নির্মাণে এটি একটি অন্যতম উপাদান।

জাকাত সমাজের বঞ্চিতদের অর্থনৈতিক সাহায্য প্রাপ্তির একটি উপায়। আর্থসামাজিক উন্নয়নে জাকাত অত্যন্ত ফলপ্রসূ একটি ব্যবস্থা। সর্বোপরি জাকাত মানুষের মানবীয় ও আধ্যাত্মিক সম্ভাবনার বিকাশ ঘটাতে সহায়ক। জাকাতের কল্যাণধর্মিতা বহুমাত্রিক। সমকালীন কোনো অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় জাকাতের বিকল্প নেই।

জাকাতের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে পবিত্রকরণ, পরিশুদ্ধিকরণ, বৃদ্ধি পাওয়া, বরকতময় হওয়া, বিশুদ্ধ হওয়া। পবিত্র কুরআন মজিদে জাকাতের বিকল্প শব্দ হিসেবে সাদাকাহ শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। কালামে পাকে মোট ৩২ জায়গায় জাকাত শব্দের উল্লেখ রয়েছে। এর মধ্যে অন্যূন ২৬ জায়গায় জাকাত সালাতের সাথে বিধৃত হয়েছে।

সঞ্চিত বা উপার্জিত মানের পরিমাণ একটি নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম করলে তার অংশ বিশেষ নির্দিষ্ট ব্যক্তির অনুকূলে ও নির্ধারিত খাতে ব্যয় করতে হয়Ñ যা ইসলামী পরিভাষায় জাকাত বলে খ্যাত। এ ছাড়া অন্যভাবেও জাকাতের সংজ্ঞা প্রদান করে বলা হয়েছে : প্রত্যেক সাহেবে নিসাব মুসলমান তার মাল ও সম্পদ থেকে ইসলামী শরিয়তে নির্ধারিত অংশটুকু নির্ধারিত হকদারকে দিয়ে দেয়াকে জাকাত বলে। আরো একটি সংজ্ঞা এরূপ : উৎপাদিত বস্তুতে পুঁজি ও শ্রমের যেমন অধিকার আছে, তেমনি তৃতীয় উপকরণ ঐশ্বরিক দানের জন্যও একাংশ স্থিরীকৃত থাকা উচিত, তাই জাকাত। আরো বলা হয়েছে, জাকাত হচ্ছে বিত্তবানদের ধন সম্পদে আল্লাহ নির্ধারিত সেই অপরিহার্য অংশ যা সম্পদ ও আত্মার পবিত্রতা বিধান। সম্পদের ক্রমবৃদ্ধি সাধন এবং সর্বোপরি আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় শরিয়ত নির্ধারিত খাতে ব্যয় বণ্টন করার জন্য দেয়া হয়।

ইসলামী বিধি-ব্যবস্থাকে খাটো করা অথবা হেয় করার উদ্দেশ্যে কেউ কেউ বলে থাকেন জাকাত ও কর এক ও অভিন্ন। তারা মুনাফা ও সুদকেও অনুরূপভাবে অথবা মনগড়াভাবে উপস্থাপন করে থাকেন। অথচ জাকাত ও করের মধ্যে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। জাকাত মহান আল্লাহ তায়ালার একটি নির্দেশ যা ফরজ ইবাদত হিসেবে বাস্তবায়ন হয়। পক্ষান্তরে কর রাষ্ট্র কর্তৃক একশ্রেণীর নাগরিকের ওপর আরোপিত হয়ে থাকে। জাকাত ঈমানদার স্বেচ্ছাপ্রণোদিত প্রদান করে। অপর দিকে নাগরিকবৃন্দ কর বাধ্য হয়ে পরিশোধ করে। জাকাত ব্যয়ের আটটি খাত স্বয়ং আল্লাহ তায়ালা নির্ধারিত করে দিয়েছেন। কর সরকারি কোষাগারে জমা হয়। কর ব্যয়ের নির্ধারিত কোনো খাত নেই।

জাকাতের উদ্দেশ্য পর্যালোচনা করা হলে দেখা যায়, জাকাতের উদ্দেশ্য দু’টি। এক. জাকাত অর্থ পবিত্রকরণ, পরিশুদ্ধিকরণ, বৃদ্ধি। জাকাত প্রদানের মাধ্যমে ব্যক্তির আত্মা ও সম্পদ পবিত্র ও পরিশুদ্ধ হয়। দুই. জাকাতের মাধ্যমে দারিদ্র্য হ্রাস পায়। সম্পদ বণ্টনের ক্ষেত্রে জাকাত অত্যন্ত ফলপ্রসূ মেকানিজম হিসেবে কাজ করে।

জাকাতের তিনটি দিক বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য। এই তিনটি দিক হলো : অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং মানবীয় ও আধ্যাত্মিক দিক। এখন একে একে এ বিষয়গুলো পর্যালোচনা করে দেখা যাক। জাকাত দানের মাধ্যমে সম্পদের নির্দিষ্ট একটা অংশ ধনীদের কাছে থেকে গরিব-দুস্থদের মধ্যে হস্তান্তরিত হয়। ফলে গরিব-দুস্থরা অর্থনৈতিকভাবে কিঞ্চিত হলেও লাভবান হওয়ার সুযোগ লাভ করে। সমাজে তাদের পুনর্বাসিত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়। বিত্তবান ও বিত্তহীনদের মধ্যে এতে সম্প্রীতি সৃষ্টি হয়। আরো দেখা যায়, আয়ের ক্ষেত্রে সামান্য হলেও আয় বৃদ্ধি পায়।

জাকাত সম্পদ পুঞ্জীভূত করে রাখার প্রবণতা হ্রাস করে। অর্থ সম্পদ অনুৎপাদনশীল খাতে সঞ্চয় করে রাখার প্রবণতাও অনেকটা দূর করে। জাকাত সম্পদ বণ্টন ব্যবস্থার ক্ষেত্রে একটি প্রক্রিয়া হিসেবে কাজ করে। সমষ্টিগত অর্থনৈতিক মৌল কাঠামো নির্মাণে জাকাত ইতিবাচক ভূমিকা পালন করে।

মানুষ এ পৃথিবীতে সম্পদের আমানতদার মাত্র। নিজের প্রয়োজন অতিরিক্ত সম্পদ কাজে লাগিয়ে উদ্বৃত্ত সম্পদ থেকে মানবকল্যাণে ব্যয় করবে এটি ইসলামের অন্যতম একটি চেতনা। আর এটা করা হলে সম্পদ ও আয় পুনর্বণ্টনে একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব পড়ে।

সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে জাকাতের তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা লক্ষ করা যায়। বিত্তবানদের উপার্জিত সম্পদ ও আয়ে গরিব-দুস্থদের অধিকারকে পবিত্র কুরআন মজিদে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছে। জাকাতের মাধ্যমে বিত্তবানদের সম্পদ ও আয়ের কিয়দংশ গরিব ও দুস্থদের কাছে হস্তান্তরিত হয়। এর দ্বারা কিছুটা হলেও সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠা হয়। সম্পদ ও আয় এভাবে হস্তান্তরের মাধ্যমে একটা বণ্টনগত মেকানিজম অথবা একটা সিফটিং মেকানিজমের উন্মেষ ঘটে। সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এর বড়ই প্রয়োজন রয়েছে।

জাকাত স্বনির্ভরতা অর্জনে সাহায্য করে। জাকাতের অর্থ পেয়ে একজন বিত্তহীন তার কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারে। এর ফলে সামাজিক ভারসাম্য সৃষ্টি হয় এবং সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। জাকাত একজন দুস্থ বা গরিবকে নিজ পায়ে দাঁড়াতে সাহায্য করে। সমাজের কম ভাগ্যবান এই বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে অর্থনৈতিক সহযোগিতা প্রদান করা সমাজের সঙ্গতিপূর্ণ এবং ধনী জনগোষ্ঠীর জন্য নৈতিক দায়িত্ব হয়ে দাঁড়ায়। জাকাত প্রদানের মাধ্যমে অপরিহারযোগ্য দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে একটা সুযোগ সৃষ্টি হয়।

সঞ্চিত অর্থের ওপর জাকাত প্রদানের বিধান মানুষকে বিনিয়োগে উদ্বুদ্ধ করে। রাষ্ট্রীয়ভাবে জাকাত আদায়ের ব্যবস্থা হলে বিনিয়োগ প্রবণতা আরো বৃদ্ধি পাবে এবং অলস সঞ্চয়ের প্রবণতা আস্তে আস্তে হ্রাস পাবে। ফলে উদ্বৃত্ত সম্পদ ও অর্থ বিনিয়োগের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। আধুনিক অর্থনীতিতে উদ্বৃত্ত অর্থ ও সম্পদের ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনা গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

আধুনিক অর্থনীতিতে উদ্বৃত্ত সম্পদের সমষ্টিকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ফসল মনে করা হয়। ইসলাম উদ্বৃৃত্ত সম্পদের ওপর জাকাত প্রবর্তন করেছে। কেউ কেউ মনে করে থাকেন উদ্বৃত্ত সম্পদ সৃষ্টিতে মানুষ নিরুৎসাহিত হবে। ইসলামী অর্থনীতিতে ব্যক্তিগত মালিকানার সম্পর্ক অন্যান্য অর্থনৈতিক মতাদর্শ থেকে ভিন্নতর।

মার্কসীয় দর্শনে বলা হয়, পুঁজিবাদী পদ্ধতিতে উৎপাদন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পুঁজিপতিরা উদ্বৃত্ত সম্পদ সৃষ্টি করে। এ ক্ষেত্রে শ্রমিকেরা উদ্বৃত্ত সম্পদ সৃষ্টির ক্ষেত্রে একমাত্র হাতিয়ার। সমাজতান্ত্রিক দর্শনে সম্পদ শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে রাষ্ট্রের। ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্পদের প্রকৃত মালিক আল্লাহ তায়ালা। মানুষ আমানতদার মাত্র। সম্পদে গরিব-দুস্থদের হক স্বীকৃত। বলা যায়, শক্তি প্রয়োগ ছাড়াই সম্পদ সমাজের।

মার্কসীয় দর্শনে উদ্বৃত্ত সম্পদে ব্যক্তিগত মালিকানা উচ্ছেদপূর্বক রাষ্ট্রীয় পুঁজিবাদ কায়েম প্রতিষ্ঠা করে জোরপূর্বক রাষ্ট্রীয় অধিকারে নিয়ে নেয়াই উদ্বৃত্ত সম্পদ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে একমাত্র সমাধান। ইসলাম মনে করে, আয় ও ব্যয়ের ব্যালান্স থেকে উদ্বৃত্ত সম্পদের সৃষ্টি ব্যক্তির কী আছে এবং প্রয়োজনপূরণে কী দরকার। এ দুয়ের পার্থক্য দ্বারা উদ্বৃত্ত পরিমাপ করা হয়। ইসলাম উদ্বৃত্ত সম্পদ থেকে কিয়দংশ সমাজের কম সঙ্গতিসম্পন্ন ও গরিব-দুস্থদের কাছে পৌঁছাতে চায়। উদ্বৃত্ত সম্পদ বিনিয়োগপূর্বক প্রাপ্য লভ্যাংশ থেকে ইসলাম শ্রমিককে হিস্সা দিতে চায়।

সুতরাং, জাকাত সাধারণ কোনো দান নয়। অর্থনীতিতে এর ইতিবাচক প্রভাব বিদ্যমান। উদ্বৃত্ত সম্পদ থেকে জাকাতের মাধ্যমে কিয়দংশ গরিব-দুস্থদের মধ্যে হস্তান্তরের দ্বারা সম্পদ ও আয়ের ক্ষেত্রে বিদ্যমান বৈষম্য কিছুটা হলেও হ্রাস পায়। ফলে এ কথা বলা যায়, জাকাত কল্যাণকর একটি ব্যবস্থা।

Category: যাকাত