ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

কুরআন ও হাদীসে পিতা-মাতার মর্যাদা

“আর তোমার প্রতিপালক এই আদেশ করেছেন যে, একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কারো ইবাদত করবে না এবং পিতা মাতার সাথে সদ্ব্যবহার করবে। যদি তাদের একজন কিংবা উভয়ে বার্ধক্যে উপনীত হয়, তাহলে তাদের কখনোও ”উহ” শব্দটি উচ্চারণ করবে না এবং তাদেরকে ধমক দেবে না। বরং তাদের সাথে সম্মানজনক ও নরম ভাষায় কথা বলবে। আর তাদের উদ্দেশ্যে বিনয়ের বাহু অবনত করে দাও। আর বলো, হে আমার প্রতিপালক! আমার পিতা-মাতা শৈশবে যেমন আমাকে লালন-পালন করেছেন, তুমি তাদের প্রতি তেমনি দয়া কর” (সূরা বনি ইসরাইল ২৩-২৪ আয়াত)।

০ “তোমরা আল্লাহর ইবাদত কর, কোন কিছুর সাথে তার শরিক করোনা এবং পিতা-মাতার সাথে উত্তম ব্যবহার কর” (সূরা নিসা ৩৬ আয়াত)।

০ “হে রসূল! বলেদিন! তোমরা যদি কিছু আর্থিকভাবে দান করে থাক তা তোমাদের পিতা-মাতা ও নিকটাত্মীয় স্বজনকে করো” (সূরা বাকারা-২১৫ আয়াত)।

০ “রসূল (স.) বলেছেন, তার নাক ধূলায় মলিন হোক (৩ বার) সাহাবীরা বললেন, হে আল্লাহর রসূল। সেই হতভাগ্য ব্যক্তিটি কে? রসূল (স.) বললেন, সে হলো ঐ ব্যক্তি, যে তার পিতা-মাতা উভয়কে অথবা একজনকে পেল অথচ তাদের সেবা করে জান্নাত হাছিল করতে পারলো না” (মুসলিম)।

০ “এক ব্যক্তি তার পিতা-মাতাকে ক্রন্দনরত অবস্থায় রেখে হিজরতের উদ্দেশ্যে বাইয়াত করার জন্য নবী করিম (স.) -এর নিকট এসে পৌঁছলেন। রসূল (স.) বললেন, ফিরে যাও তোমার পিতা-মাতার কাছে এবং তাদেরকে খুশি করে এসো যেমনভাবে তাদেরকে কাঁদিয়ে এসেছো (আদাবুল মুফরাদ)।

০ “হযরত আবু তোফায়েল থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রসূল (স.) কে জায়ারানা নামক স্থানে গোশত বন্টন করতে দেখলাম। এমন সময় জনৈক এক মহিলা এসে তাঁর সামনে হাজির হলো। তখন রসূল (স.) নিজের চাদর বিছিয়ে দিলে মহিলা সেই চাদরের ওপর বসলেন। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, উনি কে? লোকেরা বললো উনি হলেন তার দুধ মাতা হালিমা (রা.)। যিনি তাকে দুধ পান করিয়েছেন” (আবু দাউদ)।

০ “হযরত আবু উমামা (রা.) হতে বর্ণিত আছে, জনৈক এক ব্যক্তি রসূল (স.) কে প্রশ্ন করলো, হে আল্লাহর রসূল (স.)! সন্তানের ওপর পিতা-মাতার হক কি আছে? তিনি বললেন, তারা তোমার বেহেশত ও দোযখ” (ইবনে মাজাহ)।