ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

দরুদ শরীফ নবীপ্রেমের শ্রেষ্ঠ নিদর্শন

দরুদ শরীফ গুরুত্বপূর্ণ একটি আমল। এ আমলের মাধ্যমে একসঙ্গে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের সন্তুষ্টি পাওয়া যায়। এটি মুমিনের আত্মার খোরাক এবং প্রিয় তাসবিহ। হাদিস শরীফে দরুদ পড়ার পদ্ধতি, উপকারিতা, না-পড়ার ক্ষতি সম্পর্কে বিশদ বিবরণ দেয়া আছে। পবিত্র কোরআনেও এর ব্যাপক তাগিদ রয়েছে।

আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতারা নবীর ওপর রহমত প্রেরণ করেন। হে মুমিনগণ! তোমরা নবীর জন্য রহমতের দোয়া কর এবং তাঁর প্রতি সালাম পাঠাও।’ (আহযাব : ৫৬)
আয়াতে আল্লাহ তায়ালা মুমিনদের হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর প্রতি দরুদ ও সালাম পেশ করার নির্দেশ দান করেছেন—তবে অন্যান্য নির্দেশের তুলনায় এ নির্দেশের একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য আছে। আর সেটি হচ্ছে, আল্লাহ তায়ালা কর্তৃক হজরত নবী করিম (সা.)-এর মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্ব সমুন্নত করা হয়েছে। কেননা আল্লাহ তায়ালা তাদের এমন এক মর্যাদাপূর্ণ কাজে শরিক করে নিয়েছেন, যে কাজটি তিনি নিজেও করেন এবং তাঁর ফেরেশতারাও করেন।

দরুদ শরীফ পাঠের ফজিলত অনেক। মহানবী (সা.) নিজেই বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আমার ওপর একবার দরুদ পড়ে, আল্লাহ তায়ালা তার ওপর দশবার রহমত বর্ষণ করেন।’ (মুসলিম) শুধু তাই নয়, নাসায়ি ও তিবরানিতে আরেকটু বাড়িয়ে এভাবে বলা হয়েছে—তার দশটি মর্যাদা বৃদ্ধি করেন, তাকে দশটি নেকি দান করেন এবং তার আমলনামা থেকে দশটি গোনাহ মুছে ফেলেন।

হজরত আবদুর রহমান ইবনে আউফ (রা.) বর্ণনা করেন, একদিন রাসুলুল্লাহ (সা.) মদিনা থেকে বের হয়ে কোনো এক খেজুর বাগানে ঢুকে পড়লেন। আমি তাঁর পেছন অনুসরণ করলাম। অতঃপর তিনি সিজদারত হলেন। তাঁর সিজদা খুবই দীর্ঘায়িত হলো। এমনকি আমি এতে খুব ভীত-সন্ত্রস্ত হলাম, না জানি আল্লাহপাক তাঁকে মৃত্যুদান করলেন অথবা জান কবজ করে নিলেন। তারপর আমি তাঁর খুব কাছে গিয়ে দেখতে লাগলাম। তিনি মাথা উঠিয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘হে আবদুর রহমান! তুমি এখানে কেন এসেছো? আবদুর রহমান বলেন, আমি আমার ভীতিকর অবস্থার কথা বললাম। অতঃপর তিনি বললেন, নিঃসন্দেহে জিবরাইল (আ.) আমাকে বলেছেন, ‘আমি কি আপনাকে সুসংবাদ দেব না? নিঃসন্দেহে আল্লাহ তায়ালা বলেন, যে ব্যক্তি আপনার প্রতি দরুদ শরীফ পড়ে আমি তার প্রতি রহমত বর্ষণ করি। আর যে ব্যক্তি আপনার প্রতি সালাম পেশ করে আমি তার শান্তি বিধান করি। (মুসনাদে আহমাদ)

দরুদ শরীফ রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ নিদর্শন। কেউ ঐকান্তিকভাবে এ আমল করলে সে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর ভালোবাসায় সিক্ত হবেই। এতে মহানবীর (সা.) পাশাপাশি আল্লাহ তায়ালাও বান্দার প্রতি রহমতের দৃষ্টিপাত করেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কেয়ামতের দিন আমার সুপারিশের নিকটবর্তী সেই ব্যক্তি হবে যে আমার প্রতি অধিক মাত্রায় দরুদ পাঠ করবে। (তিরমিজি) হজরত ওমর (রা.) বলেন, ‘দোয়া আসমান ও জমিনের মধ্যবর্তী স্থানে স্থগিত থাকে; যতক্ষণ পর্যন্ত তোমরা নবীর ওপর দরুদ পাঠ করবে না, ততক্ষণ উপরে উঠবে না।’ (মেশকাত)

দরুদ শরীফ পাঠ করার অনেক নিয়ম-পদ্ধতি রয়েছে। নামাজের মধ্যে প্রসিদ্ধ দরুদ (দরুদে ইবরাহিম) শরীফটি পাঠ করা সুন্নত, এটি সুন্নতে মোয়াক্কাদা। তবে সাধারণত কোনো স্থানে হজরত রাসুলে আকরাম (সা.)-এর নাম যখন উচ্চারণ করা হবে তখনই তাঁর প্রতি দরুদ শরীফ পড়া ওয়াজিব। এ প্রসঙ্গে ওলামায়ে কেরাম হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিস দলিল হিসেবে পেশ করেন। তিনি বর্ণনা করেন, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যার কাছে আমার নাম উল্লেখ করা হয় সে যেন তত্ক্ষণাত্ আমার ওপর দরুদ শরীফ পড়ে।’ (জামেউস সগির) তবে একই মজলিসে বারবার নাম উচ্চারিত হলে একবার দরুদ পাঠ করলেই ওয়াজিব আদায় হয়ে যায়, তবে প্রতিবার পাঠ করা মুস্তাহাব। এছাড়া সপ্তাহের যে কোনো দিন কিংবা যে কোনো সময় ওজু করে ঐকান্তিকভাবে দরুদ শরীফ পড়া অনেক পুণ্যের কাজ।

জুমার দিন ও রাতে দরুদ শরীফ পড়া খুবই কল্যাণকর। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘তোমরা জুমার দিনে ও রাতে আমার প্রতি বেশি করে দরুদ পড়। যে ব্যক্তি এরূপ করবে আমি কেয়ামতের দিন তার পক্ষ অবলম্বন করব, তার পক্ষে সাক্ষ্য দেব এবং তার জন্য সুপারিশ করব। (জামেউস সগির) রাসুলে করিম (সা.) আরও ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি আমার ওপর দৈনিক ১০০ বার দরুদ পাঠ করবে, সে জান্নাতের ঠিকানাটি না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করবে না। (তারগিব)

হজরত রাসুলে আকরাম (সা.)-এর ওপর দরুদ না পড়ার ক্ষতি প্রসঙ্গে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে। তাতে হজরত রাসুলে আকরাম (সা.)-এর নাম উল্লেখ হওয়া সত্ত্বেও কেউ যদি দরুদ শরীফ না পড়ে এবং যে মজলিসে বা আলোচনা সভায় মোটেও দরুদ শরীফ পড়া হয় না তাহলে ওই ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং ওই মজলিস অকল্যাণকর ও আফসোসের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাঁর নাম উল্লেখ করা সত্ত্বেও দরুদ পড়ে না যারা তাদের কৃপণ, অপমানিত ও দুঃখিত জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত করেছেন। পক্ষান্তরে যে ব্যক্তি দরুদ শরীফ পড়ে না, হজরত রাসুলে আকরাম (সা.) তার প্রতি অভিশাপ দেন এবং সে আল্লাহর নৈকট্য লাভ থেকে বঞ্চিত হয়। বায়হাকি শরীফে এসেছে, ‘নামাজের মধ্যে দরুদ না পড়লে সে নামাজ কবুল হয় না।’ তদুপরি কোনো দোয়ায় দরুদ না পড়লে সে আমল আল্লাহর আরশ পর্যন্ত পৌঁছায় না। এমনকি ভুলে গেলেও ধমকি থেকে রেহাই পাওয়া যাবে না। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি আমার প্রতি দরুদ পড়তে ভুলে গেল সে বেহেশতের পথই ভুলে গেল। (বায়হাকি)

হজরত রাসুলে আকরাম (সা.) আমাদের হাদিয়া, তোহফা তথা দরুদ ও সালামের মুখাপেক্ষী নন। এর কারণ, তিনি নিজেই রাহমাতুল্লিল আলামিন, বিশ্বজাহানের জন্য দয়ার সাগর। আমাদের দরুদ ও সালাম পাঠানোর উদ্দেশ্য হচ্ছে তাঁকে সম্মান করা, তাজিম করা, তাকে ভালোবাসা এবং তার নাম বুলন্দ করা। তার এ অনন্য সম্মান ও মর্যাদা আল্লাহ তায়ালাই নির্ধারণ করে দিয়েছেন। দরুদ ও সালাম পাঠানোর বিনিময়ে বহুগুণে যে প্রাপ্তি, তা আমাদের নিজেদেরই। বস্তুত, হজরত রাসুলে আকরাম (সা.)-এর মহব্বত অর্জন এবং জীবনের সর্বক্ষেত্রে তার আদর্শ-সুন্নত অনুসরণের যে চেষ্টা-সাধনা ও অনুশীলন—প্রকৃতপক্ষে সেটিই ঈমানের মেহনত।

লেখক : হাসনাইন হাফিজ