ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

প্রতিবেশীর অধিকার

ইসলাম প্রতিবেশীর সাথে সদ্ব্যবহার ও তার হক আদায়ের প্রতি অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছে। আল কুরআন বলেছে, ‘তোমরা আল্লাহর ইবাদত করো, তার সাথে কোনো কিছুকে শরিক কোরো না। সদ্ব্যবহার করো বাবা-মা, আত্মীয়-স্বজন, এতিম-মিসকিন, নিকট-প্রতিবেশী ও দূর- প্রতিবেশী, সঙ্গী-সহচর, পথচারী ও তোমাদের ডান হাত যাদের মালিক হয়েছে, তাদের সঙ্গে। আল্লাহ তায়ালা তাদের ভালোবাসেন না, যারা অহঙ্কারী দাম্ভিক।’ (সূরা নিসা : ৩৬)

এই আয়াতে ‘আস্সাহিবে বিল জানব’ ও ‘জালজানব’ বলতে প্রতিবেশীকে বোঝানো হয়েছে। আয়াতে মহান আল্লাহ তায়ালা ‘আল্লার ইবাদত করো, তার সাথে কাউকে শরিক কোরো না’ এই মর্মে যে বিধান দিয়েছেন তার সাথে কিছু লোকের অধিকারের কথা আলোচনা করেছেন। তাদের মধ্যে রয়েছে বাবা-মায়ের হক, আত্মীয়স্বজনের হক, স্বামী-স্ত্রীর হক, ইয়াতিম-মিসকিনের হক ইত্যাদি।

এসব গুরুত্বপূর্ণ বিধানের সাথে আল্লাহ তায়ালা পাড়া-প্রতিবেশীর হকের কথাও উল্লেখ করেছেন। সুতরাং স্বাভাবিকভাবেই বোঝা যায় যে, পাড়া-প্রতিবেশীর সাথে সদাচরণের প্রতি কী পরিমাণ গুরুত্ব দিয়েছে ইসলামি শরিয়ত। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হলো, বর্তমানে আমাদের সমাজে এ দিকটির প্রতিই বেশি অবহেলা করা হচ্ছে। যার অনিবার্য পরিণতিতে সমাজে ফেতনা-ফাসাদ, নৈরাজ্য, বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে। ঘরে-বাইরে কেউ স্বস্তিতে নেই। অনিরাপদ জীবন যাপন করছে সবাই। অথচ কুরআন কারিমের এই একটিমাত্র আয়াতের ওপর আমল করলে আমাদের সমাজে শান্তির শীতল বায়ু প্রবাহিত হতে শুরু হবে। ফলে পাড়া-প্রতিবেশীর মাঝে অনাকাক্সিত ঝগড়াবিবাদ সৃষ্টি হবে না। প্রত্যেকে আপন প্রতিবেশীর কল্যাণকামী হবে। প্রতিবেশীর প্রতি দায়িত্ববোধ ও তার অধিকার আদায়ে সচেষ্ট হবে।

প্রতিবেশীর হক সম্পর্কে হাদিস শরিফেও অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। একবার রাসূল সা: সাহাবাদের লক্ষ করে বলেন, ‘তোমরা কি জানো প্রতিবেশীর হক কী? যদি সে তোমার সাহায্যপ্রার্থী হয় তাকে সাহায্য করবে, যদি সে ধার চায় তাকে ধার দেবে, যদি সে অভাবগ্রস্ত হয় তার অভাব মোচন করবে, যদি সে রোগগ্রস্ত হয় তাকে সেবা দান করবে, যদি তার মৃত্যু হয় জানাজার নামাজে শরিক হবে, যদি তার মঙ্গল হয় তাকে উৎসাহিত করবে, যদি তার বিপদ হয় তার প্রতি সহানুভূতি জানাবে। তার অনুমতি ব্যতীত তোমার ঘর এত উঁচু করবে না, যাতে তার আলো বাতাস বন্ধ হয়ে যায়। যদি তুমি ফলমূল ক্রয় করো, কিছু অংশ প্রতিবেশীর জন্য পাঠাবে। আর যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে তা গোপনে তোমার সন্তানদের খেতে দেবে, যেন প্রতিবেশীর ছেলেমেয়ে তার বাবা-মাকে বিরক্ত না করে।’

অন্য হাদিসে এসেছে, হজরত ইবনে আব্বাস রা: বর্ণিত, রাসূল সা: বলেছেন, ‘ওই ব্যক্তি পূর্ণ মুমিন নয় যে পরিতৃপ্ত অথচ তার প্রতিবেশী ক্ষুধার্ত।’ (মুসনাদে আবু ইয়ালা, হাদিস নং-২৬৯৯, আল আদাবুল মুফরাদ, হাদিস নং ১১২)

নবী করিম সা: বলেছেন, ‘যে আল্লাহ ও আখেরাতের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন প্রতিবেশীর সাথে সদাচরণ করে।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-১৮৫)

আরেক হাদিসে রাসূল সা: বলেছেন, ‘যে আল্লাহ ও আখেরাতের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন প্রতিবেশীকে কষ্ট না দেয়।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস-১৮৩)

প্রতিবেশী বলতে সাধারণত পাশাপাশি বসবাসকারীকে বুঝানো হয়ে থাকে। সে হিসেবে শুধু পাশাপাশি বাড়ির লোকদের একে অপরের প্রতিবেশী বলা যায় না; বরং বিষয়টা তখন আরো ব্যাপকতা লাভ করে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যারা পাশাপাশি বসবাস করেন তারা একে অপরের প্রতিবেশী।

এমনকি কেউ যদি গাড়িতে পাশাপাশি সিটে আসন গ্রহণ করেন অথবা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এক রুমে অথবা পাশাপাশি রুমে বসবাস করেন তারাও একে অপরের প্রতিবেশী। কাজেই প্রত্যেকের উচিত, আপন প্রতিবেশীর সুবিধা-অসুবিধার প্রতি লক্ষ রাখা।

বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দেখা যায়, ঘুমের নির্দিষ্ট সময়ে কয়েকজন ঘুমিয়ে আছে, একজন এসে বাতি জ্বালিয়ে তার প্রয়োজন সারছে অথবা উচ্চকণ্ঠে গল্প জুড়ে দিয়েছে। এতে যে অন্যদের ঘুমের মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে, তার কোনো পরোওয়াই নেই। একজন বাসের সিটে বসে আরামে বিড়ি টানছে, অপরজন বিড়ির গন্ধ সহ্য করতে না পেরে বমি করতে করতে সারা। এ ধরনের সমাজচিত্রের সম্মুখীন আমরা প্রতিনিয়ত হচ্ছি। এ ধরনের আচরণে প্রতিবেশীর হক বা অধিকারকে চরমভাবে পদদলিত করা হয়।

মূলত এসব অমানবিক চিত্র তখনই বন্ধ হতে পারে যখন সবাই আল্লাহর বিধান ও প্রতিবেশীর ব্যাপারে ইসলামি শরিয়ত যে নির্দেশনা দিয়েছে, তা মেনে চলে। ইসলামের শিক্ষা হলো, কোনো প্রতিবেশীর অনিষ্ট সাধন করা যাবে না; বরং প্রতিবেশীর প্রতি কল্যাণকামী হতে হবে। অনিষ্ট সাধনকারী প্রতিবেশীকে ইসলাম মুমিন হিসেবে স্বীকৃতি দিতেই প্রস্তুত নয়।

এক হাদিসে এসেছে, রাসূল সা. ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তায়ালার কসম, সে ব্যক্তি মুমিন নয়! আল্লাহ তায়ালার কসম, সে ব্যক্তি মুমিন নয়!! আল্লাহ তায়ালার কসম সে ব্যক্তি মুমিন নয়!!! ইরশাদ হলো, কে মুমিন নয় ইয়া রাসূলুল্লা সা:! রাসূল সা. বললেন, যার অনিষ্ট হতে তার প্রতিবেশী নিরাপদ নয়।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৬০৬১)

প্রতিবেশী যেই হোক না কেন, সে প্রতিবেশী। জাতি, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার প্রতি প্রতিবেশী হিসেবে সমান দায়িত্ববোধ রাখতে হবে। প্রতিবেশী হিসেবে তাদের অধিকার আদায় করে দিতে হবে। মানবিক দিক থেকে তাদের সাথে সদ্ব্যবহার করতে হবে। এমনকি প্রতিবেশী যদি অমুসলিমও হয় তার পরও তার অধিকার আদায়ে কমতি করা যাবে না।

মুজাহিদ রহ: বলেন, একবার আমি হজরত উমর রা: এর কাছে ছিলাম। তার গোলাম একটি বকরির চামড়া ছাড়াচ্ছিল। তিনি গোলামকে উদ্দেশ করে বললেন, ‘তোমার এই কাজ শেষ হলে সর্বপ্রথম আমাদের ইহুদি প্রতিবেশীকে দেবে।’ তখন এক ব্যক্তি বলল, আল্লাহ তায়ালা আপনার এসলাহ করুন। আপনি ইহুদিকে আগে দিতে বলছেন! তিনি উত্তরে বললেন, ‘হ্যাঁ, আমি প্রতিবেশীর অধিকারের বিষয়টি রাসূলকে সা: এত বেশি গুরুত্ব দিয়ে বলতে শুনেছি যে, আমার মনে হয়েছে, প্রতিবেশীকে তিনি আমাদের মিরাসের হকদার বানিয়ে দেবেন।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস নং-১২৮, তহাবি শরিফ, হাদিস নং-২৭৯২)

অথচ প্রতিবেশীর হকের প্রতি আমরা এতটাই উদাসীন যে, শহরের অভিজাত এলাকাগুলোতে বছরের পর বছর দু’জন মুসলমান ভাই এক বিল্ডিয়ের পাশাপাশি ফ্যাটে বসবাস করলেও তাদের পরস্পরে না আছে কথাবার্তা, না আছে পরিচয়। একধরনের অহমিকাবোধ তাদের মাঝে কাজ করে। যেন প্রতিবেশীর সাথে কথাবার্তা বলা, তার সাথে পরিচিত হওয়া সম্মানহানিকর। তাই দেখা যায়, পাশাপাশি ফ্যাটে দীর্ঘ দিন বসবাসকারী দুই প্রতিবেশীর একজনের বাসায় বিয়ে-শাদির মতো নানা আনন্দানুষ্ঠান হলেও অপরজন খবরই পান না। আবার কেউ আপন বাসায় কোনো বিপদের সম্মুখীন হয়ে থাকলেও অপরজন তা গুরুত্বই দেন না।

ইসলাম প্রতিবেশীর মাঝে দূরত্বের এই সম্পর্ককে সমর্থন করে না; বরং কঠোরভাবে এর নিন্দা করে। রাসূল সা: বলেছেন, ‘জিবরাইল আ: আমাকে প্রতিবেশীর হকের ব্যাপারে এত বেশি তাকিদ করেছেন যে, আমার কাছে মনে হয়েছে প্রতিবেশীকে মিরাসের অংশীদার বানিয়ে দেয়া হবে।’ (সহিহ বুখারি ৬০১৪, সহিহ মুসলিম ২৫২৪)

প্রতিবেশীর বাড়িতে হাদিয়া পাঠানো, ভালো কিছু রান্না হলে প্রতিবেশীর ঘরে পাঠানো, সর্বোপরি তাদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রাখা একজন মুমিনের ঈমানি দায়িত্ব। এই দায়িত্ব আদায়ে অবহেলা হলেই প্রতিবেশীর মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি হবে, যা কিছুতেই কাম্য নয়।

হাদিস শরিফে এসেছে, রাসূল সা: বলেছেন, ‘তোমরা হাদিয়া আদান-প্রদান করো। এর মাধ্যমে তোমাদের মাঝে হৃদ্যতা সৃষ্টি হবে।’ (আল আদাবুল মুফরাদ, বুখারি, হাদিস নং-৫৯৪)।

অন্য হাদিসে এসেছে, হজরত রাসূল সা: বলেছেন, ‘হে আবুজর ! যখন তুমি তরকারি পাকাও তাতে একটু বেশি পানি দিয়ে ঝোল বাড়াও এবং তোমার প্রতিবেশীকে পৌঁছাও’ (মুসলিম শরিফ হাদিস নং ২৬২৫)।

অন্য হাদিসে রাসূল সা: নারীদের এ বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করে বলেছেন, ‘হে মুসলিম নারীগণ! তোমাদের কেউ যেন প্রতিবেশিকে হাদিয়া দিতে সংকোচবোধ না করে। যদিও তা বকরির খুরের মতো একটি নগণ্য বস্তুও হয়’ (সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৬০১৭)

কোনো প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়া, তার অধিকার নষ্ট করা ঈমানপরিপন্থী কাজ। যখনই প্রতিবেশীর শরিয়ত অনুমোদিত হক নষ্ট করা হয়, তখনই প্রতিবেশী কষ্ট পায়। কোনো মুমিন ব্যক্তি দ্বারা তার প্রতিবেশী কোনো ধরনের কষ্ট পেতে পারেন না।

হাদিস শরিফে এসেছে, ‘যে আল্লাহ তায়ালার ওপর ঈমান আনে ও আখেরাতের প্রতি বিশ্বাস রাখে সে যেন তার প্রতিবেশীকে কষ্ট না দেয়।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৬০১৮)

প্রতিবেশীকে আমরা বিভিন্নভাবে কষ্ট দিয়ে থাকি। যেমন প্রতিবেশীর বাসার সামনে ময়লা ফেলা, তার ঘুমের ব্যাঘাত হয় এমন কোনো কাজ করা, প্রতিবেশী পরদানশিন হলে তার বাসায় উঁকি দিয়ে তাকানো, জোরে ক্যাসেট, মোবাইল, টিভি ইত্যাদি বাজানো এসব কিছুই প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়। অনেক সময় প্রতিবেশীকে আমরা গৃহপালিত পশু দিয়ে কষ্ট দেই। গৃহপালিত পশু দিয়ে প্রতিবেশীর ফসল নষ্ট করি। প্রতিবেশীর হাঁস-মোরগ, ছাগল-গরু ইত্যাদির ক্ষতি করে দিই যা কোনোভাবেই একজন মুমিন প্রতিবেশীর গুণ হতে পারে না।

মুমিন প্রতিবেশী সর্বদা লক্ষ রাখবে, আমি যেন আমার প্রতিবেশীর কষ্টের কারণ না হই। আমি যেমন চাই না যে, আমার প্রতিবেশী আমার সাথে খারাপ আচরণ করুক, ঠিক আমারও আমার প্রতিবেশীর সাথে খারাপ আচরণ করা উচিত নয়। আল্লাহ তায়ালার রাসূল আমাদের মন্দ প্রতিবেশী থেকে পানাহ চাইতে বলেছেন।

রাসূল সা: বলেন, ‘তোমরা মন্দ প্রতিবেশী থেকে পানাহ চাও।’ (সুনানে নাসায়ি, হাদিস নং-৫৫০২, শুয়াবুল ঈমান, বাইহাকি, হাদিস নং-৯১০৬)

মোট কথা, আমরা প্রতিবেশীর উপকার করতে না পারলেও আমাদের দ্বারা যেন প্রতিবেশীর কোনো অনিষ্ট না হয়, সেদিকে প্রবলভাবে লক্ষ রাখতে হবে।

লেখক : মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব শিক্ষক, জামিয়া রহমানিয়া সওতুল হেরা, টঙ্গী, গাজীপুর