ইসলাম ও আমাদের জীবন

বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলাম ও আমাদের জীবন - বিভিন্ন সংবাদপত্র থেকে নেয়া কিছু লেখা …

ইসলামে মেহমান ও মেজবান

ইসলাম সব কিছুর আদব-কায়দা শিক্ষা দিয়েছে। ইসলামে মেহমান ও মেজবানেরও কিছু দায়িত্ব-কর্তব্য রয়েছে। যারা বেড়াতে যান তারা মেহমান, আর যাদের বাড়িতে যান তারা মেজবান। দাওয়াত খাওয়া ও খাওয়ানো দু’টিই সুন্নত। আন্তরিকতাপূর্ণ অনাড়ম্বর দাওয়াতের কথা ইসলাম বলেছে। দাওয়াত দিলে সাধ্যের বাইরে গিয়ে হলেও দামি খাবার খাওয়াতে হবে অথবা অবশ্যই উপহার নিয়ে যেতে হবে- এটা জরুরি নয়।

বিস্তারিত পড়ুন …

কবরে সওয়াব পাওয়ার আমল

মানবজীবনে দু’টি অধ্যায় রয়েছে। একটি দুনিয়া ও অপরটি আখেরাত। আমরা এ জগতে যেসব আমল করব পরকালে বা আখেরাতে তার ফলাফল লাভ করব। দুনিয়াতে মন্দ কাজ করলে পরকালে তারও প্রতিদান পাবো। প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা আমল করব কোন পর্যন্ত? আমরা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমল করার ক্ষমতা রাখি। তার পরে আর রাখি না। কাজেই মালাকুল মউত আসার সাথে সাথে আমাদের সব ইবাদতের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাবে। তাই এমন কিছু আমল আমাদের করা প্রয়োজন, যা মৃত্যুর পরেও আমাদের সওয়াব পেতে সাহায্য করে।

বিস্তারিত পড়ুন …

হজ বিশ্ব মুসলিম ভ্রাতৃত্বের বন্ধন

হজ আল্লাহপ্রেম ও বিশ্ব মুসলিমের ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের অন্যতম পথ। এটি আল্লাহর নির্দেশিত এমন একটি ফরজ বিধান, যা ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ এবং ইসলামের অপরাপর বিধান থেকে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। হজে আর্থিক ও কায়িক শ্রমের সমন্বয় রয়েছে, যা অন্য কোনো ইবাদতে এক সাথে পাওয়া যায় না। হজ সারা বিশ্বে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সংহতি ও সাম্যের প্রতীক। এ লক্ষ্যে পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে ‘পবিত্র কাবা শরিফে হজ করা সব মুসলমানের কর্তব্য, যারা সেখানে যাওয়ার ক্ষমতা রাখে’ (সূরা আলে ইমরান : ৯৭)।

বিস্তারিত পড়ুন …

পর্দা ও বাঙালি মুসলিম মানস

নারীর প্রতি বৈষম্যপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি অতি পুরনো। সে তুলনায় নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠা আন্দোলন সেদিনের। বিভিন্ন কারণে নারী তার প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হলেও ইউরোপ-আমেরিকার নারীমুক্তি আন্দোলন মূলত ধর্মকেই এর জন্য দায়ী করেছে।

বিস্তারিত পড়ুন …

ইসলাম মানতে হবে পূর্ণভাবে

islam means peace1আমাদের জীবন কিছু সময়ের সমষ্টি। প্রতিনিয়ত তা ক্ষয়প্রাপ্ত হচ্ছে। বরফ বিক্রেতার যেমন সময় যত অতিক্রান্ত হয়, তার পুঁজি তত নিঃশেষ হয়ে যায়; আমাদের জীবনও ঠিক তেমনি। যত দিন যাচ্ছে, আমাদের হায়াত তত হ্রাস পাচ্ছে, অর্থাৎ আমরা মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। মৃত্যুর ব্যাপারে আস্তিক-নাস্তিকের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। সবাই স্বীকার করে যে, জন্মেছি যেহেতু মৃত্যু একবার আসবেই। নাস্তিকের কথা বাদ দিলে আমরা যারা মুসলিম তারা সবাই বিশ্বাস করি যে, এ মৃত্যুই শেষ নয়, এরপর আর একটি জগৎ আছে, যেখানে দুনিয়ার কৃতকর্মের বদলা দেয়া হবে। এখন আমরা দেখি, বিশ্বাসীদের জীবনে দ্বীন পালনের অবস্থা কেমন। আমাদের মধ্যে একটি বিরাটসংখ্যক মানুষ দ্বীনের কোনো বিধি-বিধানই মান্য করে না। নামাজ-রোজা-জাকাত-হজ বা উপার্জনে হালাল-হারাম কোনো কিছুরই তোয়াক্কা করে না। মাঝেমধ্যে জুমার নামাজ বা বছরে দু’বার ঈদের নামাজ আদায় করে থাকে। বিধিবিধান পালনের কথা বললে তাদের জবাব হয় নামাজ না পড়লেও আমাদের ঈমান ঠিক আছে। অথচ কুরআন ও হাদিসের বর্ণনা মতে নামাজ আদায় মুসলমান হওয়ার জন্য ন্যূনতম শর্ত। হাদিসের ভাষা হলো- যে ইচ্ছাকৃতভাবে নামাজ ছেড়ে দিল সে কুফুরি করল।

বিস্তারিত পড়ুন …

বিয়ের জন্য কেমন প্রস্তুতি চাই

biyeবিয়ের প্রস্তুতি বলতে সাধারণত আমরা বুঝি টাকা-পয়সা জোগাড় করা বা বিয়ের প্রয়োজনীয় সাজসরঞ্জাম কেনাকাটা ইত্যাদি। বাস্তবে বিয়ের প্রস্তুতি হলো বিয়ে-পরবর্তী বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করা। বিয়ে করার পর অনেককেই প্রতিকূল পরিস্থিতি ও বিভিন্ন পেরেশানিতে পড়তে হয়। পারিবারিক দ্বন্দ্ব এর অন্যতম। বিয়ে করার সাথে সাথেই অনেকের বাবা-মা, ভাইবোন, আত্মীয়স্বজনের সাথে মানসিক দূরত্ব সৃষ্টি হয়।

বিস্তারিত পড়ুন …

জ্ঞান অর্জন কেন ফরজ ইবাদত

gghanআমরা সাধারণত সালাত, সিয়াম, হজ ও জাকাতকেই ফরজ ইবাদত বলে জানি বা মনে করি। আসলে আল্লাহ তায়ালার প্রতিটি হুকুম মেনে চলার নামই হচ্ছে ইবাদত। সালাতের আগে অবশ্যই ঈমান আনতে হয় আর ঈমান আনার পূর্ব শর্ত হচ্ছে জ্ঞান। কারো বয়স যখন ১০ থেকে ১১-তে উন্নীত হয় তখন সে ভালো-মন্দসহ অনেক বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করে। আর এ জ্ঞানের ভিত্তিতেই একজন বালেগ ব্যক্তি তার প্রতিপালক ও আখিরাতের প্রতি ঈমান আনে। ঈমান আনার কারণে যেকোনো ব্যক্তির ওপর সালাত আর সিয়াম ফরজ হয়। সাহেবে মাল হলে এক বছর পর জাকাত ফরজ হয়, আর শারীরিক সুস্থতা, আর্থিক সঙ্গতি ও নিরাপদ যাতায়াতের শর্তে হজ ফরজ হয়।

বিস্তারিত পড়ুন …

সমাজ ও মানবজীবন

somajযে সমাজ মহাগ্রন্থ আল কুরআন ও বিশ্বনবী মুহাম্মাদ সা:-এর সুন্নাহর ওপর প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হয় সেই সমাজকেই কেবল প্রকৃত ইসলামী সমাজ বলা যেতে পারে। অর্থাৎ সমাজের মানুষের চিন্তাচেতনা, শিল্প-সংস্কৃতি, আচার-অনুষ্ঠান, আইন-কানুন তথা সব কাজের মধ্য দিয়েই যারা প্রমাণ করে যে, তারা একমাত্র আল্লাহরই গোলামি করে যাচ্ছে- এমন সমাজই ইসলামী সমাজ। আর কালেমা শাহাদাত এ ধরনের আল্লাহর দাসত্বমূলক জীবনব্যবস্থা গ্রহণ করে নেয়ার মৌখিক স্বীকৃতি দেয় এবং বাস্তবজীবনে তা পালনের পদ্ধতি নির্ধারণ করে।

বিস্তারিত পড়ুন …

কবর, মাযার ও মৃত্যু সম্পর্কীত কতিপয় বিদ’আত

কবর, মাযার ও মৃত্যু সম্পর্কীত কতিপয়
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ,আকাশে ঘন কালো মেঘের আড়ালে অনেক সময় সূর্য্যের কিরণ ঢাকা পড়ে যায়। মনে হয় হয়ত আর সূর্য্যের মুখ দেখা যাবে না। কিন্তু সময়ের ব্যাবধানে নিকশ কালো মেঘের বুক চিরে আলো ঝলমল সূর্য্য বের হয়ে আসে। ঠিক তেমনি বর্তমানে আমাদের সমাজের দিকে তাকালে দেখা যাবে বিদ’আতের কালিমা ইসলামের স্বচ্ছ আসমানকে ঘিরে ফেলেছে। যার কারণে কোন কাজটা সুন্নাত আর কোন কাজটা বিদ’আত তা পার্থক্য করাটাই অনেক মানুষের জন্য কঠিন হয়ে গেছে। যা হোক শত রকমের বিদ’আতের মধ্য থেকে এখানে শুধু কবর, মাযার ও মৃত্যু সম্পর্কীত কয়েকটি প্রসিদ্ধ বিদ’আত তুলে ধরা হল। যদিওএ সম্পর্ক আরও অনেক বিদ’আত আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে। যদি এতে আমাদের সমাজের বিবেকবান মানুষের চেতনার দুয়ারে সামান্য আঘাত হানে তবেই এ প্রচেষ্টা সার্থক হবে।

বিস্তারিত পড়ুন …

মা-বাবার সেবা

ma-babaআল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত হাজার হাজার নেয়ামত দান করেছেন। আলো, বাতাস, পানি, মানব চক্ষু, কর্ণ দেহের নাসিকা। কত না সুন্দর এ জগৎ, মহান প্রভুর সৃষ্টিতে মা-বাবাই হলেন সর্বশ্রেষ্ঠ উপহার। আমরা মাতা-পিতাকে বুঝে না বুঝে কত না কষ্ট দিই। অথচ তারা আমাদের সুখ-শান্তির জন্য জীবনভর চেষ্টা করেন। লালন-পালন, সন্তান বড় করা, মানুষ করা তাদের এমনই কত না ত্যাগ-তিতিক্ষার পর বড় হয়ে আমরা তাদের জন্য কি-ই বা করতে পারি বা করি?

বিস্তারিত পড়ুন …